কোভিড পরবর্তী আবাসন- সতর্কতা ও সচেতনতা

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

কোভিড১৯ মহামারি ২০২০ সালে আমাদের জীবনধারাকে চরমভাবে প্রভাবিত করেছে স্থান, কাল, পাত্র, শ্রেণী, বর্ণ নির্বিশেষে। আমরা সবাই একটি পর্যায়ে ঘরবন্দী হতে বাধ্য হয়েছি এবং বর্তমানে সমস্যার পূর্ণাঙ্গ সমাধানের আগেই আমাদের বের হয়ে আসতে হচ্ছে ঘর থেকে। কিন্তু এর মধ্যেই নিজের আবাসস্থল থেকে কাজ করা, শিক্ষাগ্রহণ হোম ডেলিভারিসহ অনেক বিষয়ে অভ্যস্ত হয়ে গিয়েছে বিশ্ববাসী। সাথে সাথে আমাদের মতো নগরবাসীর সামনে প্রমাণিত হয়েছে যে, আবাসন বিষয়ে আমাদের চিন্তাধারায় পরিবর্তন আনাটা আবশ্যক।

বর্তমানে আবাসন বিষয়ে ঢাকা শহরের একমাত্র পছন্দের বা বিলাসের নিয়ামক হচ্ছে স্কয়ার ফুট। এর সাথে টাইলস করা বাসা কিংবা খুব প্রাথমিক কিছু চাহিদার বিনিময়ে আমরা আমাদের সারা জীবনের সঞ্চয়ে কিনে নিচ্ছি বিভিন্ন মাপের বাক্স। সেই বাক্সগুলোতে আমাদের স্বপ্ন আমাদের প্রতিদিনের অবসর এবং পরিবারের সাথে কাটানো সেরা সময়গুলোকে করছি বাক্সবন্দী। এই জীবনধারাকে খুব বেশি হলে মাথা গোঁজার ঠাঁই বলা যায়। কিন্তু সানন্দে বসবাস করা বা একটি বিপর্যয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে নিরাপদ থাকার জন্য এই ব্যবস্থা কোনোভাবেই প্রস্তুত নয়। আমাদের এই জীবনধারার কারণে ঢাকা শহর শুধু কংক্রিটের জঞ্জালই হয়ে যায়নি বরং আবাসনের স্বাভাবিক সব সুযোগসুবিধার দামও হয়ে গিয়েছে আকাশচুম্বী। আমাদেরকে তাই অবশ্যই বদলাতে হবে।

স্থাপত্যে যেকোনো ভবনের নকশা শুরু হয় একজন মানুষের বিভিন্ন কাজের জন্য প্রয়োজনীয় দূরত্বের হিসাবনিকাশের নিরিখে। সেখানে মানুষসংক্রান্ত ব্যাপারে পরিবর্তন না এনে প্রকৌশলীগণ স্ট্রাকচারাল, ইলেক্ট্রিক্যাল, মেকানিক্যাল প্লাম্বিংয়ের মতো কাজগুলো যোগ করেন। এতদিন এখানে সামাজিক দূরত্ব বা দীর্ঘদিন ঘরবন্দী থাকার মতো হিসাব যেমন ছিল না, তেমনি পরিষ্কারপরিচ্ছন্নতা, মেডিকেল বর্জ্য ব্যবস্থাপনার মতো বিষয়গুলোও বিবেচনা করতে হত না।

কোভিডের কারণে স্থাপত্য প্রকৌশলবিদ্যায় যারা শিক্ষিত তারা অবশ্যই ডিজাইন বা ভবন নকশায় পরিবর্তন আনতে যাচ্ছেন। এমনকি যারা ভবন নির্মাণ আইন অনুমোদনের সাথে সংশ্লিষ্টতারাও মানুষের বসবাসের জন্য ন্যূনতম সুযোগসুবিধা এবং নিরাপত্তা বিধিমালায় মাথায় রাখবেন এই বিষয়গুলো। তাই হয়তো অদূর ভবিষ্যতে ইমারত সংক্রান্ত বিধিমালাতেও আমরা বিশ্বজুড়ে পরিবর্তন দেখব। 

কিন্তু ভবনের নকশা নির্মাণ করা হয় সেই ভবনে যারা বসবাস করবেন তাদের জন্য। এই কারণেই তাদের চাহিদাও ভবন নির্মাণে খুবই গুরুত্বপূর্ণ নিয়ামক। তাই ভবনের নকশা কোভিডের মতো মহামারি প্রতিরোধী কিংবা সুরক্ষাবান্ধব হবে কিনা ব্যাপারে আপনাকেও হতে হবে সতর্ক সাবধান। 

কী কী বিষয় খেয়াল রাখবেন মহামারি থেকে নিরাপদ থাকতে? চলুন জেনে নেয়া যাক-

. নজর থাকুক স্কয়ার ফুটের বাইরেও

বেঁচে থাকতে হলে শুধু বেশি স্কয়ার ফুট যথেষ্ট নয়। এর সাথে চাই পর্যাপ্ত আলো বাতাস, চাই ঘরের ভেতর বাহিরের সাথে সুসম্পর্ক, চাই ব্যক্তিগত গোপনীয়তা এবং নিরাপত্তা। শুধু ঘরের স্কয়ার ফিট বাড়াতে গিয়ে বারান্দা বা টেরেসের মতো জায়গা ছোট করে ফেলবেন না। বেডরুমের একঘেয়েমি ঘরবন্দী অবস্থায় মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করে ফেলতে পারে মানুষকে। সরকারি নিয়ম মেনে সেটব্যাক এবং প্লটের ৪০% জায়গা ছেড়ে দিয়ে বাড়ি বানান। এতে মুক্ত বাতাস বা মাটির যোগান হবে। বারান্দাগুলোর গ্রিল অত্যধিক ঘন করে ফেলতে নিরুৎসাহিত করুন। শুধু নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে যতটুকু দরকার ততটুকুই নিন।

প্রত্যেক ফ্ল্যাটের প্রতিটি কোণায় আলো আসছে কিনা তা দেখে নিন। ভবনের পেছনের দিকে ফ্ল্যাটের অবস্থান হলে সেদিকে অন্য ফ্ল্যাট থেকে যথেষ্ট দূরত্ব না থাকলে সেই ফ্ল্যাট কেনা বা নির্মাণ অনুমোদন থেকে বিরত থাকুন। ছাদে বাগানসহ কম্যুনিটি স্পেস এখন সরকারি আইনের অংশ। এগুলো আপনার ক্রেতা হিসাবে অধিকারও। এই ব্যাপারগুলোতে তাই জোর দিন। 

. ফ্ল্যাটের ক্রমধারার গুরুত্ব

একটি ভালো ডিজাইনের ফ্ল্যাটে সাধারণত দুটো দরজা থাকে। একটিকে বলা হয় মূল প্রবেশপথ, আরেকটির নাম সার্ভিস প্রবেশপথ। ফার্নিচারের জায়গা বাঁচাতে গিয়ে অনেকে সার্ভিস সংক্রান্ত পথগুলো বন্ধ করে ফেলেন। এই অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে সুস্থ থাকতে। সার্ভিস ফটকের কাছে কমন ওয়াশরুম একটি বেসিন থাকাটা বাইরে থেকে এসে ঘরে প্রবেশের সময় হাত ধোয়া, জীবাণুমুক্ত হওয়া এবং বাইরে থেকে কেনা বাজারসদাইসহ অন্যান্য সামগ্রী ঘরে আনার আগেই নিরাপদ করতে সাহায্য করে। এছাড়া ময়লা নিষ্কাশন ম্যানেজমেন্টেও এই ক্রমধারা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

এই চিন্তাগুলো একজন প্রশিক্ষণবিহীন মানুষের জন্য আগে থেকে করা খুবই কঠিন। মনে রাখবেন এই পর্যায়কে বলা হয় Spatial Design যা আপনি নিজে এমনকি একজন প্রশিক্ষিত সিভিল ইঞ্জিনিয়ারও আপনাকে দিতে পারবেন না। এজন্য অবশ্যই IAB এর সদস্যপদপ্রাপ্ত স্থপতির নকশা গ্রহণ করুন। এরকম ছোট ছোট অনেক বিষয়ে একজন স্থপতির নকশা আপনাকে রোগব্যাধি থেকেও নিরাপদ রাখতে পারে।

. কমিয়ে আনুন গ্যারেজ এলাকা   

অনেকেই নিজের গাড়ি না থাকা সত্ত্বেও গ্যারেজ স্পেস কিনে ভাড়া দেন বা একটি গাড়ি থাকলেও ভবিষ্যতের কথা ভেবে একাধিক গ্যারেজ কিনে রাখতে চেষ্টা করেন। এতে করে অল্প কিছু অর্থনৈতিক লাভ হয়তো হয়। কিন্তু ডেভেলপার স্থপতির উপর অতিরিক্ত গ্যারেজ নকশায় অন্তর্ভুক্ত করার চাপ তৈরি হয়। এর ফলে অনেক সময় দেখা যায়, ওপরে জায়গা ছেড়ে দিলেও নিচে গ্যারেজের জন্য অনেক জায়গা পাকা করে ফেলতে হয়। এছাড়া গ্যারেজের বাইরে সেটব্যাকও অনেকে পাকা করে ফেলেন। এতে করে ভবনের বসবাসে তাপ বৃদ্ধি হয় এবং শহরজুড়ে মাটি পানি শোষণের ক্ষমতা কমে যায়। এসব কারণে কেন্দ্রীয় পানির সাপ্লাইয়ের উপরে নির্ভরতা বাড়ে। ফলনশীল গাছ পানি শোষনের জন্য এসব জায়গা ফাঁকা রাখুন। গ্যারেজ এলাকায় বরং একটি প্রাথমিক চিকিৎসা কেন্দ্র (যেখানে ডাক্তার এসে ভবনের অসুস্থ রোগীদের প্রাথমিকভাবে দেখতে পারবেন), একটি ফায়ার ফাইটিং কক্ষ (বাধ্যতামূলক), চাকুরিরত গার্ডের জন্য নিজস্ব থাকার ঘর ইত্যাদি নির্মাণে মনোযোগী হোন। এগুলি আপনাকে মহামারির সময় সাহায্য করবে। 

. ল্যান্ডস্কেপিং হোক স্মার্ট

নগরে সামান্য সবুজের সন্ধানে আমরা আধুনিক ভবনে সামান্য জায়গায় কিছু গাছপালা লাগাতে চেষ্টা করি। ছাদে বাগানের পাশাপাশি নিচে ভবনের সামনেও বর্ণিল গাছপালা লাগানো হয়। এর সাথে অনেক ভবনে সুইমিং পুল কিংবা বাহারী পাতাবাহার গাছের সজ্জাও আজকাল দেখা যায়। কিন্তু এই ধরনের খরচগুলোর জন্য পরে মেইনটেনেন্স খরচও দিতে হয়। শহরে সবুজ এবং নিসর্গ খুবই দরকারি এবং প্লটে গাছের পরিমাণ বাড়ানোও খুবই প্রয়োজনীয়। কিন্তু কী গাছ লাগাচ্ছেন সে ব্যাপারে সচেতন হওয়াটা আরো বেশি জরুরি। এই ফাঁকা জায়গাগুলিতে পাতাবাহার বা সজ্জাকর গাছ না লাগিয়ে ফলনশীল দেশী গাছ লাগানোটা মহামারির সময় বাইরের বাজার উপকরণের উপর নির্ভরতা কমিয়ে আনতে পারা যায়। এছাড়া ভবনে যারা চাকরি করেন তাদের খাদ্য সংস্থানেও এগুলো হতে পারে দরকারি জায়গা। নগর কৃষি দিনে দিনে বিশ্বজুড়ে একটি বড় আন্দোলন হয়ে উঠছে নিজেরা এক হয়ে। Urban Farming-এর জন্য আপনার ভবন প্রস্তুত হলে অর্থনৈতিক স্বাস্থ্যগতভাবে লাভবান হতে পারেন সকল ভবনমালিকই। সাথে সাথে কৃত্রিম এয়ার কন্ডিশন সিস্টেমের উপর নির্ভরতা কমিয়ে আপনার বিদ্যুৎ বিল কমিয়ে দিতে পারে স্মার্ট ল্যান্ডস্কেপিং। 

. সামাজিকতা হোক নিজেদের মাঝেই 

নগরে সুস্থ জীবন যাপনের জন্য সামাজিক একটি জীবন সবাই আশা করেন। অনেকেই অভিযোগ করেন, ঢাকা শহরে সামাজিক বন্ধন কমে যাচ্ছে অনেকদিন ধরেই। রোবট হয়ে পড়ছি আমরা। আমাদের ভবনের নকশাগুলি এমনভাবেই করা যাতে খুব বেশি সামাজিকতার সুযোগ থাকে না। আমরা যেটুকু সামাজিক কর্মকাণ্ড করি তাও হয়ে পড়ে পার্ক, কম্যুনিটি সেন্টার বা শপিং মল কেন্দ্রিক। অথচ এই কোভিডের সময়ে আপনি বাইরে যেতে পারছেন না আপনার সামাজিক কাজগুলোর জন্য। এটিরও নেতিবাচক প্রভাব অনেক। ভবনের একটি ইউনিট কম নির্মাণ করে কিংবা ছাদকে ব্যবহার করে গড়ে তুলুন নিজস্ব সামাজিক স্পেস। এসব জায়গায় নিজেদের অনুষ্ঠান করার সুযোগ যেমন থাকবে, প্রতিদিন বাচ্চাদের খেলাধুলা এবং বৈকালিক অবসর কাটাতেও আপনাকে জনারণ্য জায়গায় যেতে হবে না। 

. হোন শক্তি স্বনির্ভর

আধুনিক ভবনে বসবাসকারী আধুনিক নাগরিক হিসাবে আপনি নিঃসন্দেহে চান প্রযুক্তির সর্বোচ্চ সুবিধা নিতে। আপনার ভবনকে সেক্ষেত্রে চেষ্টা করুন শক্তির ব্যাপারে স্বনির্ভর করতে। বেরিয়ে আসুন জীবাশ্ম জ্বালানির উপর অতি নির্ভরতা থেকে। ব্যবহার করুন সৌরশক্তি। প্রকৌশলীর পরামর্শ মেনে নির্দিষ্ট সংখ্যক সোলার প্যানেল লাগিয়ে নিলে বিদ্যুৎ বিলের পাশাপাশি কমে যাবে গ্রীষ্মের তাপমাত্রাও। নকশায় প্রাকৃতিক ভেন্টিলেশন নিশ্চিত করতে স্থপতিকে উৎসাহ দিন। সঞ্চয় করার ব্যবস্থা করতে বলুন বৃষ্টির পানিনকশার কারিগরির মাধ্যমেই। আপনার বেসিনে বা গোসলে খরচ হওয়া পানি টয়লেটের ফ্ল্যাশে পুনঃব্যবহার করতে নির্দেশনা দিন প্রকৌশলীকে। আরেকটু সচেতন হলে ওয়াশিং মেশিনে কাপড় ধোয়া পানিও খুব সহজে টয়লেটের ফ্ল্যাশে ব্যবহার করতে পারেন। এতে পানি বিশুদ্ধকরণে যেমন খরচ কমবে সকলের, তেমনি আপনার পানির বিলও কমে যাবে অনেকভাবে। এই কাজগুলো করলে আপনার ভবন হবে স্বনির্ভর। তাই যেকোনো মহামারি বা দুর্যোগ অবস্থাতেও আপনি নিরাপদে স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারবেন সহজেই। 

. নকশার আওতায় আসুক এলাকাও 

আবাসিক এলাকার নকশার ক্ষেত্রে অনেক সময়ই দেখা যায়, দুই বা তিন রাস্তা জুড়ে শুধুই বাড়ি তৈরি করা হয়। এতে মুদি দোকান, সেলুন বা বাজারের মতো সুবিধা পেতে যেতে হয় বহুদূর এবং অনেক মানুষ অল্প ব্যবসার উপর নির্ভরশীল হয়ে যায়। ফলে ভীড় বাড়ে। 

কিন্তু এখন থেকেই এলাকাভিত্তিক নকশার অধীনে প্রতি ৩০ ভবনের জন্য একটি Amenity shop এর ব্যবস্থা চিন্তা করা উচিৎ। এতে করেই তৈরি হবে এলাকাভিত্তিক নিজস্ব অর্থনীতি। এই দোকানগুলি হতে পারে ভবনের ঠিক নিচেই। এমনকি স্মার্ট ল্যান্ডস্কেপ বা সামনে ছেড়ে দেয়া জায়গায় ফলনশীল গাছ লাগিয়ে, সবজির চাষ করে সেগুলো নিজেদের মধ্যে বেচাকেনা হতে পারে এসব দোকানেই। এতে করে বাজারের উপর নির্ভরতা কমবে। মানুষ নিজের এলাকার সাথে সংযুক্ত হবে আরো গভীরভাবে এবং পণ্যের দাম বিশুদ্ধতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়াও হবে অনেক সহজ।

কোভিড মহামারির ফলশ্রুতিতে কোনো পরিবর্তন হঠাৎ করে চলে আসবে না। তবে শুরু করতে হবে আজই। কারণ, এই মহামারি কবে নির্মূল হবে সেটা বলা যেমন কঠিন, সেরকম আরো একবার এরকম মহামারি আসলে আপনি যদি প্রস্তুত না থাকেন তাহলে ক্ষতিগ্রস্থ হবে আপনারই ভবিষ্যৎ প্রজন্ম। ভবনের নকশায় নান্দনিকতা বা ডেকোরেশনের চেয়ে প্রযুক্তি নকশাগত উৎকর্ষ এখন অনেক বেশি জরুরি হয়ে উঠেছে। এসব ব্যাপারে আপনি, আপনার স্থপতি, প্রকৌশলী, নির্মাতা এবং সরকারের একীভূত মনোযোগই পারে একটি নিরাপদ ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে। 

No comment yet, add your voice below!


Add a Comment

বাড়ি বানাতে ইচ্ছুক ব্যক্তিদের জন্য একটি পরিপূর্ণ ওয়েব পোর্টাল- হোম বিল্ডার্স ক্লাব। একটি বাড়ি নির্মাণের পেছনে জড়িয়ে থাকে হাজারও গল্প। তবে বাড়ি তৈরি করতে গিয়ে পদে পদে নানা ধরণের প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হই আমরা। এর মূল কারণ হচ্ছে সাধারণ মানুষের মাঝে বাড়ি তৈরির নিয়ম নীতি সম্পর্কে ধারণার অভাব। সেই অভাব পূরণের লক্ষ্যে যাত্রা শুরু করেছে হোম বিল্ডার্স ক্লাব। আমাদের রয়েছে একদল দক্ষ বিশেষজ্ঞ প্যানেল। এখানে আপনি একটি বাড়ি তৈরির যাবতীয় তথ্য, পরামর্শ ও সাহায্য পাবেন।

© 2020 Home Builders Club. All Rights Reserved by Fresh Cement