প্রি-কাস্ট কংক্রিট: যা যা জানা প্রয়োজন

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

নির্মাণ কাজে বর্তমানে বহুল ব্যবহৃত একটি উপাদান হলো কংক্রিট। কংক্রিট কাস্টিং এর মাঝে আছে প্রি-কাস্ট কংক্রিট এবং ইন-সাইট কংক্রিট। চলুন জেনে নিই প্রি-কাস্ট কংক্রিটের খুঁটিনাটি বিষয় নিয়ে।

প্রিকাস্ট কংক্রিট কী?

সিমেন্ট, বালি, খোয়া (ইটের টুকরো), পাথরের টুকরো পানির সঙ্গে মিশিয়ে যে নির্মাণসামগ্রী বা মিশ্রণ (মশলা) তৈরি করা হয়, তাকে ঢেলে চাপ দিয়ে নির্দিষ্ট আকার দেওয়া হয়। শুকানোর পর একেই কংক্রিট বলে। এই নির্দিষ্ট আকার দেওয়ার পুরো প্রক্রিয়াটি যদি নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে বা কোনো আলাদা জায়গা থেকে করে বিল্ডিং সাইটে কেবল স্থাপনের জন্য নিয়ে আসা হয় তখন সেটিকে বলা হয় প্রি-কাস্ট কংক্রিট ।

প্রিকাস্ট কংক্রিটের সুবিধাসমূহ

  • প্রি-কাস্ট কংক্রিট ব্যবহার কন্সট্রাকশনের সময় সাশ্রয়ী হিসেবে বিবেচিত। কারণ, সাধারণত কংক্রিট সেটিংয়ের পর কিউরিংয়ের ক্ষেত্রে সময় লাগে প্রায় ২৮ দিন। ইন-সাইট কংক্রিট কাস্টিংয়ে প্রতিটি আলাদা আলাদা ওয়ালের জন্য এই সময়টা ব্যয় করতে হয়, যেখানে প্রি-কাস্ট কংক্রিটে অন্যান্য কাজের সাথে কংক্রিটের কাজটাও এগিয়ে ফেলা যায়।
  • প্রি-কাস্ট কংক্রিট মাটিতে রেখে করা হয় আর ইন-সাইট কংক্রিটে তা হয় দণ্ডায়মানভাবে। সেজন্য প্রি কাস্টের বাইন্ডিং বেশি ভালো হয়।
  • কারখানার নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে কাস্ট করা হয় দেখে সাধারণত প্রি-কাস্ট কংক্রিটের মান ইন-সাইট কংক্রিটের মানের থেকে বেশ ভালো হয়ে থাকে।
  • প্রি-কাস্ট কংক্রিটের স্ট্রাকচার দীর্ঘস্থায়ী হয় বেশি এবং কার্যকরীও হয় বেশি।
  • পুরো একটা ভবনই প্রি-কাস্ট কংক্রিট দিয়ে তৈরি করা সম্ভব।
  • যেহেতু প্রি-কাস্ট এর পুরো প্রক্রিয়াটি আলাদা কারখানায় হয়, তাই কন্সট্রাকশন সাইটে অতিরিক্ত লোকবলের প্রয়োজন হয় না, সেইসাথে সহজেই দ্রুততার সাথে কাজ সম্পন্ন করা যায়।
  • একই ধরনের কংক্রিট স্ল্যাব যেসব স্ট্রাকচারে ব্যবহার করা হয়ে থাকে, যেসব জায়গায় প্রি-কাস্ট কংক্রিট অত্যন্ত সময় এবং অর্থ সাশ্রয়ী। সেক্ষেত্রে মোল্ড তৈরির মাধ্যমে সহজেই তৈরি করা সম্ভব। আবার ইনস্টলেশনেও কম সময় লাগে।
  • প্রি-কাস্ট কংক্রিটের ক্ষেত্রে অনেক ধরনের ম্যাটেরিয়াল ব্যবহার করে রং, টেক্সচার ইত্যাদি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব, যেহেতু কাস্টিংয়ের ক্ষেত্রে সময় সাশ্রয় হয়। অপর দিকে ইন-সাইট কংক্রিটের বেলায় কাস্টিংয়ের ক্ষেত্রেই এত বেশি সময়ের প্রয়োজন হয় যে, পুরো প্রক্রিয়াটি কোনো কারণে দেরি করে শুরু করলে কনস্ট্রাকশন টাইম অনেক বেড়ে যায়।
  • যেহেতু পুরো প্রক্রিয়াটি সাইটের বাইরে করা হয়, তাই সাইটে কংক্রিটের কাঁচামাল রাখার প্রয়োজন পড়ে না, ফলে সাইট কাজ করার জন্য অনেক নিরাপদ এবং পরিষ্কার থাকে।

প্রিকাস্ট কংক্রিটের অসুবিধাসমূহ

  • কন্সট্রাকশন সাইট থেকে ভিন্ন সাইটে কাস্টিং করা হয় বিধায় যাতায়াতের পেছনে খরচ অনেক বেড়ে যায়।
  • কংক্রিট যেহেতু একটি ভারী এবং বড় ম্যাটেরিয়াল, তাই এক্ষেত্রে অতিরিক্ত সতর্কতার প্রয়োজন হয়, না হলে প্রোডাক্টের ক্ষতি হবার সম্ভাবনা থেকে যায়।
  • একবার কাস্ট করা হয়ে গেলে কংক্রিটের আকার পরিবর্তন প্রায় অসম্ভব। সেক্ষেত্রে যেকোনো অপ্রত্যাশিত সমস্যা হলে পুরো স্ট্রাকচারটিই বাতিল করতে হয়।
  • প্রি-কাস্ট কংক্রিট ইনস্টলেশনে অতিরিক্ত জয়েন্টের প্রয়োজন হয়, যেটি পুরো স্ট্রাকচারের মানে প্রভাব ফেলতে পারে; যেহেতু পুরো বিল্ডিংয়ের ভার বহনকারী হিসেবে জয়েন্টগুলো কাজ করে।
  • কংক্রিটের জয়েন্টের জায়গাগুলো ওয়াটারপ্রুফ সিল দিয়ে আলাদাভাবে ঢেকে দিতে হয়, যেন সামগ্রিক স্ট্রাকচার ওয়েদার প্রুফ হয় এবং টেক্সচারও ঠিক থাকে।
  • প্রি-কাস্ট কংক্রিট আলাদাভাবে কাস্ট করা হয় দেখে অনেক সময়ই ইনস্টলেশনে কিছুটা ডিস-কন্টিনিউইটি দেখা দিতে পারে।

সর্বোপরি প্রি-কাস্ট কংক্রিট ব্যবহারের পূর্বে এসব বিষয় বিবেচনা করা উচিৎ। এর যাবতীয় সুবিধা-অসুবিধা যাচাই করে প্রয়োজন অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নিলেই আপনার নির্মাণকাজের জন্য এটি হবে সাশ্রয়ী ও লাভজনক।

No comment yet, add your voice below!


Add a Comment

বাড়ি বানাতে ইচ্ছুক ব্যক্তিদের জন্য একটি পরিপূর্ণ ওয়েব পোর্টাল- হোম বিল্ডার্স ক্লাব। একটি বাড়ি নির্মাণের পেছনে জড়িয়ে থাকে হাজারও গল্প। তবে বাড়ি তৈরি করতে গিয়ে পদে পদে নানা ধরণের প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হই আমরা। এর মূল কারণ হচ্ছে সাধারণ মানুষের মাঝে বাড়ি তৈরির নিয়ম নীতি সম্পর্কে ধারণার অভাব। সেই অভাব পূরণের লক্ষ্যে যাত্রা শুরু করেছে হোম বিল্ডার্স ক্লাব। আমাদের রয়েছে একদল দক্ষ বিশেষজ্ঞ প্যানেল। এখানে আপনি একটি বাড়ি তৈরির যাবতীয় তথ্য, পরামর্শ ও সাহায্য পাবেন।

© 2020 Home Builders Club. All Rights Reserved by Fresh Cement